Share |

অনলাইন রেমিটেন্স সেবায় আজিমো

প্রিয়জনের কাছে টাকা পাঠান আস্থার সাথে দ্রুত এবং স্বল্প খরচে

নতুন প্রযুক্তি ও নতুন ব্যবস্থা  
আজিমোর প্রতিষ্ঠাতার কাছে প্রথম প্রশ্ন ছিলো রেমিটেন্স ব্যবসায় বড় বড় প্রতিষ্ঠান থাকতে তিনি কেনো আজিমো শুরু করলেন। মাইকেল জানালেন, প্রযুক্তির দ্রুত পরিবর্তনের এই যুগে মানুষের জীবন যাপন আর যোগাযোগের ধরণ পা?ালেও মানি ট্রান্সফার ব্যবসাগুলো সেই সাথে তাদের ব্যবস্থা বদলায়নি। অথচ এখন ইন্টারনেটের যুগে মানুষ দ্রুত, কম খরচে এবং সহজে অর্থ পাঠাতে চায়। আমরা গ্রাহকদের সেই ‘ডিজিটাইড’ চাহিদা অনুযায়ী সেবা দিতেই আজিমো গড়ে তুলেছি।   

মানি ট্রান্সফারের অর্থ অনেক
মাইকেল জানালেন, মানি ট্রান্সফারের মানে আমাদের কাছে অনেক কিছু। বললেন, সারা বিশ্বের যেকোন দেশে আমাদের গ্রাহকরা অর্থ পাঠাতে পারেন। আর অর্থ প্রেরণ ছাড়াও আমাদের মাধ্যমে বাংলাদেশসহ ১২০টি দেশে মোবাইল ফোনের ক্রেডিট টপ-আপ করা যায়। বাংলাদেশে আজিমোর মাধ্যমে পাঠানো টাকা ব্যাংক এশিয়া, সিটি ব্যাংক এবং জনতা ব্যাংকের যে কোন শাখা থেকে নগদ তোলা যাবে। আগামীতে বাংলাদেশে ‘মোবাইল ওয়ালেট’ নামে সেবা শুরু করবে আজিমো।  
তাঁর কাছে প্রশ্ন ছিলো, প্রতি বছর বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে রেকর্ড সৃষ্টি করা বাংলাদেশের গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে কোন বিশেষ সুবিধা আছে কি না। মাইকেল জানালেন, আজিমো এমনিতেই প্রচলিত মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠানের চেয়ে অনেক কম খরচে সেবা দিয়ে থাকে। এছাড়াও সময়ে সময়ে স্পেশাল প্রমোশনাল অফার থাকে। গত রমজানে বাংলাদেশে তাদের সেবা শুরুর পর থেকে ভালো সাড়া পাচ্ছেন বলে জানালেন তিনি।   

৭০% কম খরচ, ২৪ ঘন্টায় টাকা পৌছবে
মাইকেল জানান, ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন কিংবা মানিগ্রামের চেয়ে অন্তত ৭০% ভাগ কম ব্যয়ে টাকা পাঠানো যাবে আজিমোর মাধ্যমে। আর সাধারণত ২৪ ঘন্টার মধ্যেই গ্রাহকের কাছে টাকা পৌছে যাবে। টাকা পাঠানোর পর গ্রাহকের কাছে এসএমএস পাঠিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে টাকা পৌছার খবর। প্রাপক তখন আজিমোর বাংলাদেশে অবস্থিত পার্টনার ব্যাংক থেকে নগদ অর্থ তুলে আনতে পারবেন। কাউন্টার থেকে নগদ তোলার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৮০০ পাউন্ড পাঠানো যাবে। তবে ব্যাংক একাউন্টে পাঠালে এর পরিমাণ ৫৬৮০ পাউন্ড। আজিমোর মাধ্যমে সর্বনিম্ন পাঠানো যাবে ১০ পাউন্ড। তবে মাইকেল জানান, জনপ্রিয় এসএমএস এলার্ট পাঠানোর ব্যবস্থাটি এখনো শুরু হয়নি। এ নিয়ে কাজ চলছে। শীঘ্রই এ সেবা যুক্ত হবে আজিমোর ব্যবস্থাপনায়।  

যেভাবে টাকা পাঠানো যাবে  
আজিমোর অ্যাপস ডাউনলোড করে স্মার্টফোন কিংবা কম্পিউটার থেকে অ্যাপসের মাধ্যমে গ্রাহক হিশেবে রেজিস্টার করতে হবে। এছাড়া কম্পিউটার থেকে আজিমোর ওয়েবসাইটে গিয়েও গ্রাহক হিশেবে নাম রেজিস্ট্রেশন করা যাবে। রেজিস্ট্রেশন শেষ হলে এরপর গ্রাহক প্রাপকের নাম ঠিকানা এবং কিভাবে টাকা পাঠাতে চান সেটা নির্দিষ্ট করে ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে অর্থ পরিশোধ করার ২৪ ঘন্টার মধ্যে টাকা পৌছে যাবে।
বড় অংকের অর্থ প্রেরণের ক্ষেত্রে ডলারে কিংবা ইউরোতে ‘সুইফট’ পদ্ধতির মাধ্যমে প্রচলিত ব্যাংকের চেয়ে অনেক কম খরচে অর্থ পাঠানো যাবে।   আজিমোর প্রতিষ্ঠার আগেও মানি ট্রান্সফার ব্যবসায় ছিলেন মাইকেল কেন্ট। আগের ব্যবসা বিক্রি করে দিয়ে নতুন প্রযুক্তির সমন্বয়ে গড়ে তুলেছেন একই ব্যবসা। কেনো, এর উত্তরে মাইকেল বলেন, এটি আরো নির্ভরযোগ্য, দ্রুত, সাশ্রয়ী এবং সুবিধাজনক। সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক হওয়ার কারণে আজিমোর কোন এজেন্টের খরচ নেই, অফিসের খরচ নেই বলেই সস্তায় দ্রুত এবং অধিকতর ভালো সেবা দিতে সক্ষম হচ্ছে আজিমো- জানালেন মাইকেল কেন্ট। আজিমোর অনলাইন সেবা ব্যবহারে গ্রাহকদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে বড় একটি টিম কাজ করে থাকে। ফোন, অনলাইন চ্যাট কিংবা স্কাইপের মাধ্যমে সেই সহায়তা পেতে পারেন গ্রাহকরা।  
মাইকেলের মতে, যেকোন ব্যবসা, বিশেষ করে অর্থ লেনদেনের ব্যবসায় আস্থার বিষয়টি অতি গুরুত্বপূর্ণ। আজিমো ব্রিটেনের সরকার কর্তৃক সম্পূর্ণ রেগুলেটেড। তাই শুধু টাকা পাঠানোই নয় গ্রাহকদের অর্থের নিরাপত্তা বিধান করাও আমাদের জন্য অবশ্য পালনীয় বিষয় বললেন মাইকেল। আজিমোর মানি ট্রান্সফার সেবা সম্পর্কে জানতে চাইলে ভিজিট করা যাবে https://azimo.com/en/?home ওয়েবসাইটটি।