Share |

কৃষ্ণাঙ্গ যুবক মার্ক ডুগান হত্যাকাণ্ড

পুলিশ কর্তৃপক্ষ ও আইপিসিসি’র ক্ষমাপ্রার্থনা
 কৃষ্ণাঙ্গ যুবক মার্ক ডুগান হত্যাকা-

লন্ডন, ২৯ ফেব্রুয়ারী : পুলিশের গুলিতে খুন হওয়া কৃষ্ণাঙ্গ যুবক মার্ক ডুগানের পরিবারের কাছে ক্ষমা চেয়েছে মেট্রোপলিটান পুলিশ সার্ভিস। মার্ক ডুগানের মৃত্যুর খবর তার পরিবারকে জানাতে ব্যর্থ হবার কারণে গত বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে লন্ডন পুলিশ কর্তৃপক্ষ এ ক্ষমা চায়। পাশাপাশি মেট্রোপলিটান পুলিশ সার্ভিসের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ তদন্তকারী সংস্থা ইন্ডিপেন্ডেন্ট পুলিস কমপ্লেইন্ট কমিশনও ক্ষমা প্রার্থনা করেছে। টোটেনহ্যামে পুলিশ গুলিতে নিহতের ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বছরের গ্রীষ্মে ‘লন্ডন রায়ট’ ইংল্যান্ডের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যাপক সমালোচনা হয় পুলিশের আচরণের। মেট্রোপলিটান পুলিশের উত্তর অঞ্চলের কমান্ডার ম্যাক চিশতী এক বিবৃতিতে তাদের ভুল স্বীকার করে বলেছেন, ‘গুলির অব্যবহিত পরই এমপিসি’র দায়িত্ব ছিলো পরিবারকে জানানো কিন্তু তা না করে বিষয়টি আইপিসিসি ফ্যামিলি লিয়াজোঁ ম্যানেজারদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিলো।’ তিনি বলেন, মার্ক ডুগানের মা-বাবা প্যামেলা ডুগান ও ব্রুনো হলের সাথে সরাসরি কথা না বলার কারণে যে যাতনার সৃষ্টি হয়েছে, তা আমরা স্বীকার করছি এবং এর জন্য ক্ষমা চাইছি।

উল্লেখ্য, পুলিশের হাতে মার্ক ডুগানের মৃত্যুর পুরো ঘটনার তদন্ত এখনও অব্যাহত রয়েছে, কিন্তু তাঁর মৃত্যুর পর ঘটনাটি না-জানানোর কারণে তাঁর মা-বাবা ইন্ডিপেন্ডেন্ট পুলিস কমপ্লেইন্ট কমিশনের কাছে অভিযোগ করেন। ডুগানের মা-বাবার অভিযোগের প্রেক্ষিতে সদ্য তদন্ত শেষ করে পাওয়া গিয়েছে যে, মেট্রোপলিটান পুলিশ ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট পুলিস কমপ্লেইন্ট কমিশন উভয়ই ব্যর্থ হয়েছে।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট পুলিশ কমপ্লেইন্ট কমিশনের কমিশনার রাচেল কারফন্টাইন বলেন, ‘তদন্ত সমাপ্ত হয়েছে এবং পাওয়া গিয়েছে যে, ডুগানের মৃত্যুর বিষয়টি তাঁর মা-বাবার কাছে জানাবার দায়িত্ব থাকার পরও মেট্রোপলিটান পুলিশ জানায়নি, সুতরাং আমরা অভিযোগ সত্য বলে গ্রহণ করেছি’।  অধিকর্ত্রী হিসেবে রাচেল কারফন্টাই ইন্ডিপেন্ডেন্ট পুলিস কমপ্লেইন্ট কমিশনের পক্ষ থেকে ডুগানের মা-বাবার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।

স্মরণীয়, গত বছর ৪ অগাস্ট উত্তর লন্ডনের টোটেনহ্যামে ট্যাক্সিতে ভ্রমণকারী মার্ক ডুগানকে পুলিশ থামিয়ে খুব কাছে থেকে গুলি করে হত্যা করার পর দাবী করা হয় যে, অস্ত্র নিয়ে চলা-কালে গাড়ী থামিয়ে চ্যালেঞ্জ করতে গেলে ডুগান পুলিশের উপর প্রথম গুলি করে এবং এতে পাল্টা-গুলি করলে ডুগানের মৃত্যু হয়। কিন্তু পরবর্তী তদন্তে জানা যায় যে, পুলিস ডুগানকে বিনা উস্কানীতেই গুলি করে মেরেছে।