Share |

ট্রাম্পকে সতর্ক করে পোস্ট দিয়েছিলেন আকায়েদ

লন্ডন, ১৪ ডিসেম্বর : নিউ ইয়র্কে হামলার কিছুক্ষণ আগে ফেসবুকে এক পোস্ট দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনা? ট্রাম্পকে সতর্ক করেছিলেন সন্দেহভাজন হামলাকারী বাংলাদেশী যুবক আকায়েদ উল্লাহ। গত মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) ম্যানহাটন ফেডারেল কোর্টে তার বিরুদ্ধে ফেডারেল প্রসিকিউটররা যে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন সেখানেই এই ফেসবুক পোস্টটির কথা জানানো হয়েছে। পোস্টটিতে ট্রাম্পর্কে সতর্ক করে আকায়েদ লিখেছিলেন, ‘তুমি তোমার জাতিকে রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে ট্রাম্প’। তার বিরুদ্ধে বিদেশী সন্ত্রাসী সংগঠনকে সহায়তা, জনসমাগমস্থলে বোমা হামলা, ধ্বংসাত্মক ডিভাইস ও বিস্ফোরক ব্যবহার করে সম্পদের য়তির অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এতে তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে।  
আগেরদিন সোমবার সকালে অফিসগামী যাত্রীদের ব্যস্ততার মধ্যে টাইম স্কয়ার সাবওয়ে স্টেশন থেকে ম্যানহাটনের পোর্ট অথরিটি বাস টার্মিনালে যাওয়ার সঙ্কীর্ণ ভূগর্ভস্থ পথে নিজের শরীরে বাঁধা ‘পাইপ বোমায়’ বিস্ফোরণ ঘটান আকায়েদ। বোমাটি ঠিকমতো বিস্ফোরিত না হওয়ায় প্রাণে বেঁচে গেলেও গুরুতর আহত হন আকায়েদ। তার বিস্ফোরণে আহত হন তিন পুলিশ সদস্য। ইসলামিক স্টেটের (আইএস) দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে এই হামলা চালিয়েছেন বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন তিনি।
 ফেডারেল প্রসিকিউটরদের ওই লিখিত অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, বিস্ফোরণের পর আকায়েদ পুলিশকে বলেছে, ‘আমি এটা ইসলামিক স্টেটের জন্য করেছি’। তার বিরুদ্ধে বিদেশী সন্ত্রাসী সংগঠনকে সহায়তা, জনসমাগমস্থলে বোমা হামলা, ধ্বংসাত্মক ডিভাইস ও বিস্ফোরক ব্যবহার করে সম্পদের ক্ষয়-ক্ষতির অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। প্রসিকিউটররা বলছেন, ২০১৪ সালে ইন্টারনেটে আইএসের বিভিন্ন প্রচারণা দেখে উগ্রপন্থার দিকে ঝুঁকতে থাকে আকায়েদ। এখন জেরুসালেম নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ থেকে এ হামলা করেছেন। নিউ ইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টও আকায়েদের বিরুদ্ধে অবৈধ অস্ত্র রাখা, পাইপ বোমার বিস্ফোরণ এবং সন্ত্রাসবাদী হুমকির অভিযোগ এনেছে। আকায়েদের বিচারে ফেডারেল প্রসিকিউটরদের অভিযোগগুলোই বিবেচ্য হবে; আর তাতে তার সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে।