Share |

সত্যবাণী’র প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

লন্ডন, ৫ মার্চ : কিছু কিছু নামসর্বস্ব অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে কপি-পেইস্ট, একই হেড লাইন, নিউজের সূত্র না থাকা, বানান ভুল ও মিথ্যা সংবাদ প্রচারের তীব্র সমালোচনা করেছেন বিলেতের সিনিয়র সংবাদিকরা। তারা বলেন, এতে করে ঐ সংবাদ মাধ্যমের গ্রহণযোগ্যতা কমে আসে। তারা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রচার করতে অনলাইন সংবাদ মাধ্যম কর্মীদের প্রতি আহবান জানান। গত ১ মার্চ বৃহস্পতিবার অনলাইন নিউজ পোর্টাল সত্যবাণী‘র প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বক্তারা এসব কথা বলেন।  
গত বছর ২১শে ফেব্রুয়ারি ব্রিটিশ মূলধারার সাংবাদিক নেতাদের উপস্থিতিতে ১৯১৬ সালে প্রথম প্রকাশিত বাংলা সংবাদপত্র ‘সত্যবাণী’র উত্তরসুরীর অধিকার নিয়ে ‘ইতিহাস থেকে আগামীর পথে’ সৌাগান দিয়ে ‘সত্যবাণী’ অনলাইন নিউজ পোর্টাল তাঁর যাত্রা শুরু করে। পূর্ব লন্ডনের ভ্যালেন্স রোডস্থ শাহ কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় বিলেতের বাংলা মিডিয়ার সিনিয়র সংবাদিক ও কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সত্যবাণীর প্রধান সম্পাদক সৈয়দ আনাস পাশার পরিচালনায় ও সাংবাদিক আবু মুসা হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য সফররত সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা, সাবেক সভাপতি নবাব উদ্দিন, সাংবাদিক হামিদ মোহাম্মদ, লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি মাহবুব রহমান, সাপ্তাহিক সুরমা সম্পাদক আহমেদ ময়েজ, সাপ্তাহিক বাংলা পোস্ট সম্পাদক ব্যারিস্টার তারেক চৌধুরী, সাপ্তাহিক দেশ সম্পাদক তাইসির মাহমুদ, সিনিয়র সাংবাদিক আনছার আহমদ উল্লাহ, সাপ্তাহিক জনমতের বার্তা সম্পাদক সাঈম চৌধুরী, ওয়ানবাংলানিউজের প্রধান সম্পাদক মোহাম্মদ সুবহান, সাংবাদিক রাজীব হাসান, ইউকেবিডিটাইমের সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, ব্রিটবাংলার বার্তা সম্পাদক আহাদ চৌধুরী বাবু প্রমুখ।  
আলোচনা সভায় বক্তারা ব্রিটেনে বাংলা সংবাদ পত্রের বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষিতে করনীয়, গঠনমূলক সমালোচনাসহ ব্রিটেনে বাংলা সংবাদপত্রকে টিকিয়ে রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন বিষয়ে আলোচনা হয়।  
এছাড়াও বক্তারা সময়ের চাহিদা অনুযায়ী অনলাইন সংবাদমাধ্যম যে অবদান রেখে যাচ্ছে তারও প্রশংসা করেন। বক্তারা কমিউনিটিকে ঐক্যবদ্ধ রাখতে এবং কমিউটির স্বার্থে কাজ করতে সংবাদপত্রের ভূমিকাকে গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরেন। নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাকে আকৃষ্ট করার পাশাপাশি ইংরেজিতেও সংবাদ পরিবেশনের প্রতি গুরুত্ব দেন।