Share |

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা পরিকল্পনার অভিযোগ : নির্দোষ দাবি করছেন বাংলাদেশি যুবক

পত্রিকা রিপোর্ট
লন্ডন, ০৭ মে : ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে হামলা ও প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যুবক নাইমুর জাকারিয়া রহমান। গত ৪ মে শুক্রবার ভিড়িও লিঙ্কের মাধ্যমে ওলড বেইলি আদালতে সাক্ষ্য দেন তিনি। নিজেকে নির্দোষ দাবি করছেন তিনি।  
নাইমুর জাকারিয়া রহমানের বিরুদ্ধে মোহাম্মদ আকিব ইমরান নামে অপর এক যুবককে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করার অভিযোগও রয়েছে। ওই অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।  
এদিন মোহাম্মদ আকিব ইমরানও ভিড়িও লিঙ্কের মাধ্যমে আদালতে সাক্ষ্য দেন। ইমরান পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত। বিচারক হ্যাডন কেইভ আটককৃতদের কারাগারে রাখার আদেশ দিয়েছেন। আগামী ১৮ জুন পরবর্তী শুনানীর দিন ঠিক করেছেন বিচারক।  গত নভেম্বরে এই দুই যুবককে আটকের পর তাদের বিচার শুরু হলো। দুই যুবক বেলমার্শ কারাগারে বন্দি আছেন।  জাকারিয়া আত্মঘাতী বোমা ফাটিয়ে এবং ছুরি হামলা চালিয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনা করেছিলেন বলে অভিযোগ। জাকারিয়ার বিরুদ্ধে মোহাম্মদ আকিব ইমরান নামের অন্য এক যুবককে সন্ত্রাসী কর্মে সহযোগিতারও অভিযোগ আনা হয়েছে। গত ২৮ নভেম্বর নাইমুল জাকারিয়া রহমানকে লন্ডন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাঁর কাছ থেকে একধরনের বিস্ফোরক (আইডিএস) উদ্ধার করা হয় বলে দাবি পুলিশের। জাকারিয়া দক্ষিণ লন্ডনের বাসিন্দা। জাকারিয়াকে আটকের ৯০ মিনিটের মাথায় লন্ডন থেকে প্রায় দেড় শ মাইল দূরের বার্মিংহাম শহর থেকে মোহাম্মদ আকিব ইমরানকে গ্রেপ্তার করা হয়।
ব্রিটিশ প্রানমন্ত্রীর কার্যালয় ও বাসভবন ১০ ডাউনিং স্ট্রিট স্টিলের বেষ্টনী দিয়ে ঘেরা। আর প্রবেশপথে লোহার গেট। গেটে নিরাপত্তায় নিয়োজিত সদস্যদের সশস্ত্র পাহারা।
আদালতে অভিযোগ উত্থাপন করে বলা হয়, নাইমুর জাকারিয়া রহমান আত্মঘাতী বেলট পরিধান করে বোমা ফাটিয়ে এই গেট দিয়ে প্রবেশের পরিকল্পনা করেছিলেন। এরপর পেপার স্প্রে এবং ছুরি হামলা চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে প্রবেশের পরিকল্পনা নিয়েছিলেন। এ ছাড়া তিনি মোহাম্মদ আকিব ইমরানকে সন্ত্রাসবাদে জড়াতে সাহায্য করছিলেন। ইমরান জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসে যোগ দিতে একাধিকবার লিবিয়ায় পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন বলে অভিযোগ। এ জন্য তিনি উগ্রবাদী তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ, প্রয়োজনীয় অর্থের জোগান, যাতায়াত পরিকল্পনাসহ ভুয়া পাসপোর্ট বানানোর পথে বেশ কয়েক ধাপ এগিয়ে গিয়েছিলেন বলে অভিযোগ।
প্রসিকিউটর মার্ক ক্যারল বলেন, এখানে দুটি গুরুতর অভিযোগ আনা হয়েছে, যা সন্ত্রাসবাদের পরিকল্পনা, প্রস্তুতি এবং হামলা চালানোর ছক নির্ধারণের সঙ্গে যুক্ত। চূড়ান্ত পর্যায়ে যাওয়ার আগেই এসব ধামিয়ে দেওয়া সম্ভব হয়েছে।