Share |

ফিন্সবারি পার্ক সন্ত্রাসী হামলার এ বছর : বাংলাদেশি মকরুম আলীকে স্মরণ

পত্রিকা রিপোর্ট
লন্ডন, ২৪ জুন : গত বছরের রমজানে ফিন্সব্যারি পার্ক মসজিদের সামনে মুসল্লিদের ওপর গাড়ি উঠিয়ে দেয়া সন্ত্রাসী ঘটনার এক বছর পূর্ণ হয় গত ১৯ জুন মঙ্গলবার। ওই ঘটনায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মকরম আলী নিহত হয়েছিলেন। রাজনীতিবিদ, মানবাধিকার সংগঠন ও বিশিষ্টজনরা একত্রিত হয়ে দিবসটি পালন করেছেন। এতে যোগ দেন লেবার লিডার জেরেমি করবিন, হোম সেক্রেটারি সাজিদ জাভিদ, লন্ডন মেয়র সাদিক খানসহ অনেকে। তাঁরা নিহত মকরম আলীকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। নিহত মকরম আলীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ইজলিংটন টাউন হলের সামনে সকাল সাড়ে ৯টার সময় এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
মকরম আলীর স্মৃতির প্রতি উতসর্গ করে একটি  স্মৃতিফলকও স্থাপন করা হয়।  
লেবার লিডার জেরেমি করবিন, হোম সেক্রেটারি এবং লন্ডন মেয়র সাদিক খান যে কোনো সন্ত্রাসী কর্মকান্ড এবং বিদ্বেষমূলখ আচরণের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। নিহত মকরম আলীর কন্যা রোজিনা আক্তারও এ সময় বক্তব্য রাখেন।  গত বছরের ১৯ জুন উত্তর লন্ডনের ফিন্সবারি পার্ক মসজিদের সামনে দাঁড়ানো কয়েকজন মানুষের ওপর গাড়ি চালিয়ে হামলা চালান ড্যারেন অসবর্ন নামে এক শেতাঙ্গ। এতে ৫১ বছর বয়সী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক মকরম আলী নিহত হন। আহত হন আরও ৯ জন। অসবর্ন হত্যাকাণ্ডের সময় মুসলিমবিদ্বেষী ঘৃণাসূচক মন্তব্য ছুঁড়েছিলেন। হামলার পর ‘আমি সব মুসলিমকে হত্যা করতে চাই’ বলে চিৎকার দিয়েছিলেন বর্ণবাদী অসবর্ন।
উলউইচ ক্রাউন কোর্ট তাকে হত্যা ও হত্যাপ্রচেষ্টায় দোষী সাব্যস্ত করে। তাঁকে ৪৩ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।  এ ঘটনায় নিহত মকরম আলীর গ্রামের বাড়ি সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার সরুয়ালায়। মকরমের পরিবার দীর্ঘদিন থেকে বসবাস করছিলেন লন্ডনে। ১২ বছর বয়সে তিনি পাড়ি জমান লন্ডনে। একটানা প্রবাস জীবন কাটিয়ে বিশ্বনাথের দৌলতপুরে বিয়ে করেন তিনি। কয়েক বছর পর স্ত্রীকেও লন্ডনে নিয়ে যান। লন্ডনেই  জন্ম হয় তাঁর চার মেয়ে ও দুই ছেলের।