Share |

এএইচএস-এর জন্মদিনে সম্মাননা পেলেন ডাঃ শফি

পত্রিকা রিপোর্ট
লন্ডন, ০৯ জুলাই : চিকিৎসা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ‘দ্য ফিউচার এনএইচএন অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন পূর্ব লন্ডনের রয়্যাল হাসপাতালেরর চিকিতসক ডাঃ শফি। তিনি বাংলাদেশি পরিবারের সন্তান।  
গত ৪ জুলাই এনএইচএস-এর ৭০ তম জন্মদিনে হাউজ অব কমন্সে এক অনুষ্ঠানে এই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। লেবার দলের নেতা জেরেমি করবিন  তাঁর হাতে বিশেষ ওই সম্মাননা তুলে দেন।  
২০১৩ সালে ১৪ এপ্রিল হোয়াইটচ্যাপেলের রয়্যাল লন্ডন হসপিটালের সার্জন ডাঃ শফি আহমদ গুগল গ্লাস দিয়ে উইচ্যাটের মাধ্যমে অপারেশন থিয়েটার থেকে সরাসরি সম্প্রচার করেন। ডা. শফির এ সম্প্রচার ভার্চ্যুয়াল জগতে হৈচৈ ফেলে দেয়। র্ভাচচ্যুয়াল রিয়েলিটি তৈরী করে অপারেশন থিয়েটারের ৩৬০ ডিগ্রীতে দেখা যাচ্ছিলো ওই অস্ত্রোপাচারে। অস্ত্রোপাচার সরাসরি সম্প্রচারের ফলে বিশ্বের প্রায় ১৩০টি দেশের চিকিৎসক ও শিক্ষার্থী সরাসরি ইন্টারনেট এর মাধ্যমে অস্প্রোপাচার সম্প্রচার দেখেন।
এরপর থেকে ভার্চ্যুয়াল চিকিৎসক হিসাবে তার নাম সর্বত্র ছড়িয়েয়ে পড়ে।  ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্থসেবা- এনএইচএস-এর ৭০ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ছিল ৫ জুলাই। ব্রিটেনের জাতীয় গৌরব হিসাবে বিবেচিত এনএইচএস ট্রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন ধরণের আয়োজন করা হয়। যার অংশ হিসাবে আগের দিন, ৪ জুলাই ব্রিটিশ পার্লামেন্টে প্রদান করা হলো দ্যা ফিউচার এনএইচএন অ্যাাওয়ার্ড।
এই অ্যাওয়ার্ডের জন্য প্রত্যেক এমপিকে তাঁদের নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকার এনএইচ চ্যাম্পিয়ান বাছাই করে মনোনয়ন দিতে বলা হয়। অনেকগুলো আবেদনের মধ্য থেকে বেথনাল গ্রিন এন্ড বো আসনের এমপি রশনারা আলী ডা. শফিকে মনোনীত করেন। পুরস্কার প্রাপ্তির পর ডাঃ শফি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এর বিরোধীদলীয় নেতা জেরেমি করবিন এমপি রশনারা আলীকে নিয়ে একটি নিজের ফেসবুকে শেয়ার করেন। সেখানে তিনি নিজের অনুভূতির কথা জানান।  
ডাঃ শফি সিলেট বিয়ানীবাজার উপজেলার মুল্লাপুর গ্রামের ব্রিনেটবাসী মরহুম হাজি মিম্বর আলীর দ্বিতীয় পুত্র। তাঁর জন্ম বাংলাদেশের গ্রামের বাড়িতে। ডাঃ শফির গর্বিত মা সুফিয়া খানম রানী। তাঁর বাবা মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও পূর্ব পাকিস্থান ওয়েলফেয়ার ইউকে এর সভাপতি ছিলেন।  ডা. শফির স্ত্রী-ও একজন ডাক্তার। এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক ডাঃ শফি বিশ্বব্যাপী আলোচিত সার্জন হলেও বাংলাদেশী কমিউনিটির সাথে তার রয়েছে নাড়ির গভীর সম্পর্ক। যুক্তরাজ্যে বাঙালি কমিউনিটিতে তাঁর পেশাগত পরিচয় ছাড়াও মানবিক কাজে তাঁর অনুকরণীয় পরিচিতি বাংলাদেশীদের মুখ উজ্জ্বল করছে দিন দিন।