Share |

সুরমা সম্পাদনার দায়িত্বে ফরিদ আহমদ রেজা

লন্ডন, ১৬ জুলাই : সাপ্তাহিক ‘সুরমা’র সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন ফরিদ আহমদ রেজা। সম্প্রতি তিনি বাংলা গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে এক চা চক্রের আয়োজন করেন।  
পূর্ব লন্ডনের সুরমা কার্যালয়ে প্রাণবন্ত এই অনানুষ্ঠানিক আড্ডায় উঠে আসে ব্রিটেনের বাংলা মিডিয়ার নানা সংকট ও সম্ভাবনার কথা।  অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট ড. রেনু লুৎফা, সুরমা’র দুই সাবেক সম্পাদক সাংবাদিক নজরুল ইসলাম বাসন ও বর্তমানে পত্রিকার সম্পাদক এমদাদুল হক চৌধুরী, সুরমার সাবেক ও পত্রিকার বর্তমান প্রধান সম্পাদক মোহাম্মদ বেলাল আহমদ, সত্যবাণী’র প্রধান সম্পাদক সৈয়দ আনাস পাশা, বাংলা পোষ্ট সম্পাদক তারেক চৌধুরী, সাপ্তাহিক দেশ সম্পাদক তাইসির মাহমুদ, কলামিস্ট ও মিডিয়া গবেষক ফারুক আহমদ, সাংবাদিক আব্দুল মুনিম জাহেদী ক্যারল, আকবর হোসেন, আব্দুল হাই সঞ্জুু, মতিউর রহমান চৌধুরী, সুরমা’র সদ্য সাবেক সম্পাদক আহমেদ ময়েজ, বার্তা সম্পাদক কাইয়ুুম আব্দুল্লাহ, প্রেস ক্লাব সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য সালেহ আহমেদ, ওয়ানবাংলানিউজ সম্পাদক জাকির হোসেন কয়েছ, চ্যানেল এস’র সিনিয়র রিপোর্টার ইব্রাহিম খলিল, সানরাইজ টুডে’র সম্পাদক এনাম চৌধুরী এবং ওয়ানবাংলানিউজের সিনিয়র রিপোর্টার আব্দুল বাছিত রফি প্রমূখ।
সুরমা’র সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নেয়ায় ফরিদ আহমদ রেজাকে শুভেচ্ছা জানান উপস্থিত সম্পাদক ও সাংবাদিকরা।  
কলামিষ্ট রেনু লুৎফা ফরিদ আহমদ রেজাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, কমিউনিটির পুরনো প্রজন্মের পাঠকের সংখ্যা কমছে। এটি বিলেতের বাংলা সংবাদ মাধ্যমের ঠিকে থাকার চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় রেজার দীর্ঘ অভিজ্ঞতা নিশ্চয়ই নিয়ামক ভূমিকা রাখবে।
সাংবাদিক ও সংবাদ মাধ্যমের জবাবদিহীতা পাঠকের কাছে- এমন মন্তব্য করে সাংবাদিক নজরুল ইসলাম বাসন সুরমা সম্পাদক থাকাকালীন তাঁর সময়কার বিভিন্ন ঘটনার স্মৃতিচারণ করেন। তিনি বলেন, যে ভুলগুলো সম্পাদক হিসেবে নিজের চোখে পড়েনি, সেগুলোই পাঠক ফোন করে ধরিয়ে দিতেন আমাদের। পেইষ্টিং য়ের যুগে সীমিত রিসোর্সের কারণে কোন কোন সময় পুরোনো ছবি বা ফিচার দিয়ে পত্রিকা প্রেসে পাঠিয়ে দায় সারতে চাইলেও রেহাই মিলতোনা। চালাকি ধরা পড়ে  যেত পাঠকের কাছে। তিনি ফরিদ আহমদ রেজাকে সুরমা সম্পাদক পদে স্বাগত জানিয়ে বলেন, জীবনের রঙিন সময়ের কর্মস্থল সুরমা’য় ফরিদ আহমদ রেজা  আজ সম্পাদক, বিষয়টি আমাদের জন্য অবশ্যই ভালো লাগার।
পত্রিকার প্রধান সম্পাদক মোহাম্মদ বেলাল আহমদ ফরিদ আহমদ রেজাকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, বাংলা মিডিয়ার অস্তিত্ব ঝুঁকির এই সময়ে রেজা ভাই’র সম্পৃক্ততা আমাদের সাহস যোগাচ্ছে। আসলে সংকট-সম্ভাবনা নিয়েই আমাদের ঠিকে থাকতে হবে।
বিলেতের বাংলা মিডিয়ার সাংবাদিকদের পারস্পরিক সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক ধরে রাখতে সুরমার নতুন সম্পাদকের অভিজ্ঞতালব্দ ভূমিকা কামনা করে পত্রিকা সম্পাদক এমদাদুল হক চৌধুরী বলেন, রেজা ভাই এই দায়িত্ব পালনে উপযুক্ত ব্যক্তি। সুরমার সেই সোনালী দিনগুলো নিজের জীবনের একটি উজ্জল সময় এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘পাঠকের সাথে সুরমার যে আত্মিক সম্পর্ক রেজা ভাই নিশ্চয়ই সেটি টিকিয়ে রাখবেন।
সৈয়দ আনাস পাশা ফরিদ আহমদ রেজাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, সাংবাদিক কখনও সাবেক বা অবসরপ্রাপ্ত হয় না। ফরিদ আহমদ রেজা এক সময় ছিলেন সক্রিয় সাংবাদিক। পরবর্তীতে কোন দায়িত্বে না থাকলেও বিলেতের বাংলা মিডিয়া জগতে কলামিষ্ট হিসেবে তাঁর পদচারণা নিয়মিতই ছিলো। সুরমার সম্পাদক হয়ে তিনি তাঁর আগের সক্রিয়তায় ফিরে আসলেন।  
বাংলা পোষ্ট সম্পাদক তারেক চৌধুরী বলেন, শুধু প্রেসক্লাবের উপর নির্ভর না করে প্রতিটি মিডিয়া হাউস বিভিন্ন ইস্যুতে মাঝে মাঝে সাংবাদিক আড্ডার আয়োজন করা উচিত। এতে সাংবাদিকদের পারস্পরিক সম্পর্ক ঝালাই হয়। দায়িত্ব নিয়েই রেজা ভাই আড্ডা আয়োজন করে সেটিরই শুভ সূচনা করলেন বলে আমি ধরে নিচ্ছি।
আড্ডায় উপস্থিত সকলের শুভ কামনার জবাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ফরিদ আহমদ রেজা। তিনি দায়িত্ব পালনে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন, আপনাদের পরামর্শ ও সাহায্য নিয়েই কমিউনিটি মূখপত্র হিসেবে প্রাচীন পত্রিকা সুরমাকে এগিয়ে নিতে চাই।