Share |

লন্ডনে ৮ম বাংলাদেশ বইমেলা ২৩ ও ২৪ সেপ্টেম্বর

লন্ডন, ১০ সেপ্টেম্বর : আগামী ২৩ ও ২৪ সেপ্টেম্বর পূর্ব লন্ডনের ব্রাডি আর্ট সেন্টারে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘৮ম বাংলাদেশ বইমেলা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব ২০১৮’। 
সম্মিলিত সাংস্কৃতিক পরিষদ (ইউকে) এর উদ্যোগে দুই দিনব্যাপি এই বইমেলার উদ্বোধন করবেন প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান সেলিনা হোসেন। আয়োজনকে উপভোগ্য করতে সংশ্লিষ্টরা গ্রহণ করেছেন নানা উদ্যোগ। এ নিয়ে ইংল্যান্ডের সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। বইমেলা ও সাহিত্য সংস্কৃতি উৎসবকে সার্বজনীন করতে উদ্যোক্তাদেরও আগ্রহের কোনও কমতি নেই। গত ৯ সেপ্টেম্বর পূর্ব লন্ডনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বই মেলার বিস্তারিত তুলে ধরেন আয়োজকরা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ২০১৬ সালে মেলা পরিচালনায় বিভিন্ন অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার কারণে মেলায় আগত প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি, জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশনা সমিতির কর্মকর্তাগণসহ মেলায় আগতরা অসন্তুষ প্রকাশ করেন। ২০১৭ সালে নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন কমিটি কার্যভার গ্রহণ করে এবং মেলা অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেয়। কিন্তু নানা জটিলতার কারণে সে বছর মেলা করা সম্ভব হয়নি। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান নূর মহোদয় আবারও মেলায় সার্বিক সাহায্য-সহযোগিতার দানের আশ্বাস দেন এবং মেলার জন্য একটি পরিরকল্পনা মন্ত্রণালয়ে পাঠাবার নির্দেশনা দেন। কিন্তু একটি স্বার্থান্বেষী মহলের চক্রান্তের কারণেই এই ঐতিহ্যবাহী মেলাটি নিয়ে আবারও নানা দ্বিধাদ্বন্দ্ব তৈরি হয়। ফলে ২০১৮ সালে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা আমরা পাইনি। অথচ মেলার দিন-তারিখ আগে থেকেই নির্ধারিত ছিল। তাই গত আগস্ট মাসে আমরা সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নিই যে, এ বছর আমরা বিলাতের বাঙালি কমিউনিটির পরামর্শ, সার্বিক সাহায্য ও সহযোগিতা নিয়েই বাংলাদেশ বইমেলা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসবের ধারাবাহিক ঐতিহ্য বজায় রাখবো। 
এতে বলা হয়, আগামী ২৩ ও ২৪ সেপ্টেম্বর রবিবার ও সোমবার পূর্ব লন্ডনের ব্রাডি আর্টস সেন্টারে বাংলাদেশ বইমেলা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব ২০১৮ উদ্্যাপনের জন্য আমরা ২ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছি। প্রথম দিনের অনুষ্ঠানমালায় রয়েছে দুপুর ১২টায় বইমেলার উদ্বোধন। তারপর একে একে আলোচনা সভা, কবিতা পাঠ, কবিতা আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। চলবে রাত ৯টা পর্যন্ত। এর মধ্যে রয়েছে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক পরিষদের উদ্যোগে আবদুল মতিন সাহিত্য পুরস্কার ও তাসাদ্দুক আহমদ সৃজনশীল শিল্প পুরস্কার প্রদান। দ্বিতীয় দিনের আনুষ্ঠনমালায় রয়েছে বইমেলা ও সাংস্কৃতিক আনষ্ঠান। এ বছর মেলায় বাংলাদেশের ১৫টি খ্যাতিমান প্রকাশনা সংস্থা অংশগ্রহণ করছে। প্রধান অতিথি হিসেবে আসছেন কবি আসাদ মান্নান, রেডিও বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী নাজমা মান্নানসহ আরও অনেকে। অনুষ্ঠিতব্য মেলাকে সাফল্যমণ্ডিত করতে সকলের পরামর্শ, সার্বিক সহযোগিতা এবং সপরিবারে বইমেলায় অংশগ্রহণ অনুরোধ জানানো হয়। 
সংগঠনের সভাপতি ফারুক আহমদের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বুলবুলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত প্রেস কনফারেন্সে সংগঠনের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি, সাপ্তাহিক জনমতের পলিটিক্যাল এডিটর ইসহাক কাজল, কোষাধ্যক্ষ কবি এ কে এম আব্দুল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক স্মৃতি আজাদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক এম মোসাহিদ খান, প্রকাশনা সম্পাদক রেজুয়ান মারুফ, সংগঠনের প্রচার সম্পাদক এবং অনলাইন পত্রিকা দৈনিক আমাদের প্রতিদিন সম্পাদক আনোয়ার শাহজাহান, সদস্য জামাল খান, কবি মোহাম্মদ মুহিদ, চ্যানেল এস-এর চিফ রিপোর্টার মোহাম্মদ জুবায়ের ও রেজাউল করিম মৃধা, ইকরা টিভির জেনারেল ম্যানেজার হাসান হাফিজুর রহমান পলক, টিভি সাংবাদিক আহসানুল আম্বিয়া শুভন, সাপ্তাহিক দেশ সম্পাদক তাইছির মাহমুদ, সাপ্তাহিক পত্রিকার রিপোর্টার হামিদ মোহাম্মদ, পাক্ষিক ব্রিক লেইন সম্পাদক জুয়েল রাজ, সাপ্তাহিক সুরমার প্রতিনিধি হিলার সাইফ, টিভি রিপোর্টার আ স ম মাছুম, সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদ ছুটন সহ আরও অনেকে। কর্মকর্তাগণ জানান বিলাতের প্রায় প্রত্যেকটি টিভি চ্যানেল এবং পত্রিকা বিনামূল্যে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক পরিষদের বিজ্ঞাপন এবং পত্রিকাগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশের ঘোষণা দিয়েছে। সহযোগিতা করছেন কমিউনিটির সর্বস্তরের মানুষ।  বাংলাদেশ থেকে মেলায় অংশগ্রহণ করছে - আগামী প্রকাশনী, ইত্যাদি গ্রন্থ প্রকাশ, নালন্দা, উৎস প্রকাশন, জাগৃতি প্রকাশনী, অনন্যা প্রকাশনী, প্রান্থ প্রকাশনী, রামন পাবলিশার্স, শব্দশৈলী, আনিন্দ প্রকাশ, বাসিয়া প্রকাশনী, দ্য ইউনিভার্সিটি একাডেমি, পরিজাত প্রকাশনী, অনার্য প্রকাশনীসহ আরও অনেক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান।