Share |

এস কে সিনহার জবানিতে বিচার প্রক্রিয়ায় সরকারের নগ্ন হস্তক্ষেপের চিত্র : ‘শেখ হাসিনা হঠাৎ রেগে গেলেন’

লন্ডন, ২৪ সেপ্টেম্বর: সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার প্রকাশ হওয়া ‘অ্যা ব্রোকেন ড্রিম: রুল অব ল’, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি’ বইটি নিয়ে তোলপাড় সর্বত্র। এই বইতে তার পদত্যাগ থেকে দেশত্যাগ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে যা যা ঘটেছিল তার সবই তুলে ধরেছেন। এই ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালের ১লা জুলাই বঙ্গভবনে এসকে সিনহাকে প্রধানমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী ও অ্যাটর্নি জেনারেল কি বলেছিলেন সেই কথাও পুরোটা তুলে ধরেছেন।      
এসকে সিনহা লেখেন, “জুলাই মাসের ১ তারিখ, ২০১৭। সকালবেলা আমার ব্যক্তিগত মোবাইলে একটা কল আসলো। নিজেকে তিনি প্রেসিডেন্টের মিলিটারি সেক্রেটারি পরিচয় দিয়ে জানালেন, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বঙ্গভবনে প্রেসিডেন্টের সাথে দেখা করতে হবে। এই ধরণের ফোন পেয়ে আমি কিছুটা অবাক হলাম। কারণ এসব ক্ষেত্রে সবসময় আমার রেজিস্টারের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে যে কোন বৈঠকের দিন-ক্ষণ ঠিক করা হয়। ফোনে কথা শেষ করার একটু পরেই ০১৭৩০০৯০০৯৫ নাম্বার থেকে মিলিটারি সেক্রেটারি মেজর জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন মিটিং এর রিকনফার্মেশন করে একটি এসএমএস পাঠালেন। আমি উদ্বিগ্ন এবং হতবুদ্ধি হয়ে বসে থাকলাম।
যা-ই হোক, নির্দিষ্ট সময়ের পাঁচ মিনিট আগেই আমি বঙ্গভবনে পৌছালাম। সামনের বারান্দায় মিলিটারি সেক্রেটারি আমাকে রিসিভ করে একটি রুমে নিয়ে গেলেন। আমি শুধু অবাক হচ্ছি। কারণ বঙ্গভবনে আমি অনেকবার এসেছি, সবসময় আমাকে অভ্যর্থনার জন্য নির্দিষ্ট রুমে নিয়ে যাওয়া হতো। কিন্তু তিনি এদিন আমাকে অফিসারদের একটা রুমে নিয়ে গেলেন। ভাঙাচুরামার্কা এক রুমে তিনি নিজে টেবিলের ওপাশে একটা চেয়ারে বসলেন এবং আমাকে সামনের সোফাতে বসালেন। আমি অপমানবোধ করতে লাগলাম এবং চিন্তা করতে থাকলাম এভাবে বসার চেয়ে বরং ভেগে যাওয়াই ভালো হবে। এইটা একজন প্রধান বিচারপতির প্রাপ্য আচরণ না।
এইসময় তিনি আমার সাথে এই সেই কথাবার্তা বলে সময় কাটাতে চাচ্ছিলেন। তিনি জিজ্ঞাসা করলেন আমি চা বা কফি খাবো কি না, আমি বললাম নো থ্যাংকস।
এভাবে পয়তাল্লিশ মিনিট সময় পার হয়ে গেলো। তারপর এক সময় তারা আমাকে প্রেসিডেন্টের রুমে নিয়ে গেলো। ওখানে উপস্থিত মানুষদের দেখে তো আমি হতবাক। প্রেসিডেন্টের সাথে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। প্রাথমিক শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর শেখ হাসিনা আর আনিসুল হক মিলে আমাকে ষোড়শ সংশোধনী মামলার রায় প্রসঙ্গে চেপে ধরলেন। দীর্ঘক্ষণ তর্কবিতর্ক হলো। অ্যাটর্নি জেনারেল আমাকে বললেন, এ পর্যন্ত অসংখ্য এক্সট্রাঅর্ডিনারি রায় দিয়ে বিচার বিভাগের মাধ্যমে আমি যে খেদমত করেছি তার জন্য সরকার আমাকে চিরকাল মনে রাখবে। কিন্তু এখন এই একটা রায় প্রসঙ্গে দ্বিমত করে আমি সব বরবাদ করে দিচ্ছি। এই কথা শুনে আমার খুব অপমানবোধ হলো।

যখন তারা বুঝতে পারলেন যে আমাকে আমার মতামত
 থেকে নড়ানো সম্ভব না, তখন হঠাৎ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রেগে গেলেন।  তিনি  বললেন, আমার সম্পর্কে সব গোপন খবরাখবর তার ভালো করেই জানা আছে। তার কথাবার্তা শুনে আমি এবার পুরোপুরি বেকুব হয়ে গেলাম। আমার মনে হচ্ছিলো ক্ষমতায় থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রী অন্ধ হয়ে গেছেন। তার একমাত্র উদ্দেশ্য হলো পরবর্তী নির্বাচনে আবার ক্ষমতায় আসার জন্য সুপ্রিম কোর্টকে ব্যবহার করা। পুরো সময়টাতে প্রেসিডেন্ট নিরব দর্শক হয়ে বসে থাকলেন, মাঝে মধ্যে শুধু ছোটখাটো দু’একটা মন্তব্য করছিলেন। ঐদিন এ মিটিং এতো গোপনভাবে করা হয়েছিলো যে, সে রাতে আমাদের জন্য কোনো খাবারের আয়োজনও করা হয়নি। শেষপর্যন্ত রাত সাড়ে এগারোটার দিকে কোন সমাধান ছাড়াই মিটিং শেষ হয়ে যায়।
তখন আমার এতো ক্ষুধা লেগেছিলো যে আমি দাঁড়িয়ে ঠিকমতো ব্যালেন্স রাখতে পারছিলাম না। যন্ত্রের মতো টলতে টলতে গাড়িতে এসে উঠি এবং বাসায় পৌছার পর শুধু এক গ্লাস পানি খেয়ে চুপচাপ শুয়ে পড়ি। আমার অবস্থা দেখে আমার স্ত্রী খাবার দাবার নিয়ে সেরাতে আর কোনো কথা বলেনি।’’

‘শুরু থেকেই চাপ ছিল, আমি যেন বলি  
বইয়ের এক অংশে তিনি লিখেছেন, কেন দেশত্যাগে বাধ্য হলেন। এসকে সিনহা বইতে লিখেছেন, প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার অনুমতি পাওয়ার পর সিদ্ধান্ত নিলাম ২০১৭ সালের ১৩ই অক্টোবর দেশ ছাড়বো। কিন্তু যাওয়ার আগে বন্ধু আবদুর রশিদের সঙ্গে একরাতে খাবার খাওয়ার ইচ্ছা হলো এবং তাকে ফোন করলাম। জবাবে তিনি বললেন, তিনি জানতে পেরেছেন যে, আমার বাসভবনের গেটে প্রচুর বিড়ম্বনার মুখোমুখি হতে হবে। তাই আমি যেন গেটে জানিয়ে রাখি যে সন্ধ্যা ৭টায় তিনি আসবেন।  
এই মতো, আমার ব্যক্তিগত সহকারীর মাধ্যমে গেটের নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দিলাম।
 এমন খবর জানানো সত্ত্বেও, নিরাপত্তা কর্মীরা গেটের সামনে তার গাড়ি থামিয়ে দেন। তার পরিচয় জানা সত্ত্বেও গাড়ি থেকে তাকে নেমে যেতে হয়। তার ফোন নম্বর লিখে রাখা হয়। কেন সাক্ষাৎ করতে এসেছেন তার কাছে তা জানতে চাওয়া হয়। তার ছবি তোলার পর তারা তাকে আমার বাসায় প্রবেশ করতে দেয়। এ নিয়ে আমার কাছে অসন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি। আমাকে বলেন, খবর জানানো সত্ত্বেও তাকে অবমাননাকর অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়েছে। এজন্য আমি তার কাছে দুঃখ প্রকাশ করলাম। বললাম, এ পরিস্থিতি আমার নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তাকে নিশ্চয়তা দিলাম যে, তার নৈশভোজে আসার খবর আমি নিরাপত্তাকর্মীদের জানিয়েছি। আমাকে বলা হয়েছে, সন্ধ্যা থেকেই মিডিয়ার বিপুল সংখ্যক সাংবাদিক আমার বাসভবনের গেটে জড়ো হয়েছেন।  
রাত ১১টায় সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে আমার যাওয়ার কথা। আমাকে বলা হলো, পরিস্থিতি অবনতিশীল। তাদের সঙ্গে কথা না বলে বাসা থেকে বের হওয়া আমার জন্য কঠিন হয়ে উঠতে পারে। তাই, আমি সিদ্ধান্ত নিলাম বাসা থেকে বের হওয়ার সময় মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলবো। এর আগে আমি তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি। তা হলো, আমার বক্তব্য মিডিয়ায় ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে। তাই শেষ বিকালে আমার সচিব আনিসুর রহমানকে আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বলি এবং আমি একটি বিবৃতি প্রিন্ট করি। সেখানে আমি দুটি বিষয় উল্লেখ করি। তা হলো- আমার স্বাস্থ্য ভালো আছে। আগের দিন যেমনটা আইনমন্ত্রী বলেছেন যেটা আমি মিডিয়ার মাধ্যমে জেনেছি যে, তিনি সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন পাল্টে ফেলতে চান। বিবৃতিতে আমার দ্বিতীয় যে পয়েন্ট ছিল তা হলো, বিচার বিভাগের স্বাধীনতার বিষয়ে আমি বুঝতে সক্ষম। এই বিবৃতি দেয়ার আগে যখন আমি গেটে গাড়ি থেকে নামতে চাই তখন মিডিয়াকর্মীদের চাপাচাপিতে আমার গাড়ির পতাকা স্ট্যান্ড ও সাইড মিরর ভেঙে যায়। তাদের কাছে আমার বিবৃতি দিয়ে বিমানবন্দরের দিকে এগিয়ে যেতে থাকি।  
একেবারে শুরু থেকেই সারা সময়ে আমার ওপর গোয়েন্দা সংস্থার চাপ ছিল যেন আমি বলি যে, আমি অসুস্থ। তারা আমাকে যখন হাসপাতালে ভর্তি করাতে ব্যর্থ হলো, তখন তারা চিকিৎসার জন্য আমাকে বিদেশে পাঠানোর চেষ্টা করে। পরে তাদের উদ্দেশ্য আমার কাছে পরিষ্কার হয়। এ কৌশল ছিল আইনমন্ত্রীর। তিনি কখনো সংবিধান মোতাবেক চলেননি। অতীতে তিনি শুধু কিছু ক্রিমিনাল বিষয়ে কাজ করেছেন। তাই সংবিধানের ৯৭ নম্বর অনুচ্ছেদ পড়ে তার মনে হয়েছিল, আমি যদি অসুস্থতার জন্য ছুটি নিই বা হাসপাতালে ভর্তি হই তাহলে প্রধান বিচারপতির কাজ চালিয়ে নিতে বিচারপতি মো. আবদুল ওয?াহহাব মিঞাকে সরকারের দায়িত্ব দেয়া সহজ হবে। অন্যথা হলে, বার ও অন্যান্য বোদ্ধা মহলের সমালোচনা হজম করা খুব কঠিন হবে। বিভিন্ন সময় যখন আমার পূর্বসূরিরা দেশের বাইরে থেকেছেন তখন অনেকবার আমি প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করেছি।  সাধারণত আমি শুধু রুটিন ওয়ার্কগুলো করেছি। বিচার বিভাগের প্রশাসন সম্পর্কিত কোনো বিষয়ে কাজ করি নি। অফিসিয়াল রেকর্ড আরো বলে যে, প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালনকারী বিচারকের কাজে বিচার বিভাগের প্রশাসন সম্পর্কিত কোনো নীতিনির্ধারণের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেননি। এর কারণ, প্রধান বিচারপতির অনুপস্থিতিতে সবচেয়ে সিনিয়র বিচারক তার দায়িত্ব পালন করেন এবং তিনি প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেননি। প্রেসিডেন্ট পরিচালিত আলাদা একটি অনুষ্ঠানে শপথ নেন প্রধান বিচারপতি। তার কার্যক্রম সম্পর্কে সংবিধানে ও আইনে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা আছে।  
দীর্ঘ সময় ধরে এই চর্চা চলে আসছে। কিন্তু এই সময়ে সব কিছু ভিন্ন ঘটলো। যেদিনটিতে আমার সরকারি বাসভবনে অবরুদ্ধ হয়ে পড়লাম সেদিনই বিচারপতি মো. আবদুল ওয?াহহাব মিঞা এমন আচরণ দেখাতে চাইলেন যেন তিনিই প্রধান বিচারপতি। তিনি সব অফিসারকে একজনের পর একজনকে ডেকে হুমকি দিতে লাগলেন এবং তাদেরকে বললেন যে, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। সরকার তাদের আচরণে সন্তুষ্ট নয়।  তিনি সরকারের মুখপাত্র হয়ে উঠলেন এবং সরকারকে, বিশেষ করে আইন মন্ত্রণালয়কে সন্তুষ্ট রাখতে চাইলেন। দুটি ভিন্ন সময়ে বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস সন্ধ্যার দিকে আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে এলেন। এই খবর পেয়ে বিচারপতি রুহুল কুদ্দুসের ওপর অসন্তোষ প্রকাশ করেন বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা। বললেন, বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ আমার সঙ্গে সম্পর্কিত। কিন্তু কেন রুহুল কুদ্দুস আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।  
সিঙ্গাপুরে যাওয়ার পর আমি মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারি যে, সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে আমার বিরুদ্ধে গুরুতর দুর্নীতির খবর প্রকাশিত হয়েছে। বুঝতে পারি যে, আমি মিডিয়াকে বলেছিলাম আমি অসুস্থ নই। তাই আইনমন্ত্রী ক্ষুব্ধ হয়েছেন এবং সুপ্রিম কোর্টের  ওয়েবসাইটে প্রকাশিত খবর জেনেছেন। প্রধানমন্ত্রী এ নিয়ে মুখ খোলার পর ক্ষমতাসীন দলের প্রতি অনুগত একাত্তর টিভি একটি টকশোর আয়োজন করে। এতে আনা হয় সরকারের রাজনৈতিক খেলার পুতুলগুলোকে।  
সেখান থেকে আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের প্রচারণা শুরু হয়ে থাকে। যখন দৈনিক জনকণ্ঠ ও এর একজন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হয়েছিল তখনও একই রকম পদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল। তখন ওই টকশোর একটি সিডি চেয়ে বসেন আদালত। কিন্তু আইনমন্ত্রীর অনুরোধে এ বিষয়ে আমি কোনো পদক্ষেপ নিইনি। একটি নৈশভোজে বিচারপতিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে প্রেসিডেন্ট তাদেরকে বলেছেন, আমার বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ আছে। আমার ক্ষমতার সময়ে অনেক শক্তিধর ব্যক্তি ও দেশের অনেক ধনী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছি। এর মধ্যে রয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান, এশিয়ান সিটি, ফ্যান্টাসি কিংডম, চট্টগ্রামে জাহাজভাঙা শিল্পের মালিকদের বিরুদ্ধে, সিলেটের রাগীব আলীর বিরুদ্ধে। গুলশান, বনানী, মতিঝিল, ধানমন্ডি ও মগবাজার এলাকায় মূল্যবান সম্পত্তি নিয়ে হাইকোর্টের রায়কে আমি বাতিল করে দিয়েছি।
আর এখন প্রেসিডেন্ট ও সরকারের মদতপুষ্ট মিডিয়া আমাকে দুর্নীতিবাজ হিসেবে দেখানোর চেষ্টা করছে। যদি তাদের অভিযোগ সত্যি হয় তাহলে কার কাছ থেকে আমি বেআইনি সুবিধা নিয়েছি? আর এসব অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে আনা হচ্ছে শুধু ষোড়শ সংশোধনীর রায় দেয়ার পরই। ওই রায় দেয়ার পর সরকার আমার চরিত্র হননের চেষ্টা করছে বেপরোয়াভাবে। এর মধ্য দিয়ে তারা তাদের অন্যায় ও অস্বাভাবিক কর্মকাণ্ডকে প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

সিনহার বই নিয়ে বাহাস
সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার লেখা বই নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। এ নিয়ে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। এস কে সিনহার লেখা-‘অ্যা ব্রোকেন ড্রিম: রুল অব ল’, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি’ শীর্ষক বইটি এরই মধ্যে বিপুল আলোচনার জন্ম দিয়েছে। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকারী সাবেক এই প্রধান বিচারপতি  লিখেছেন, ক্ষমতাসীন সরকারই তাকে পদত্যাগে এবং নির্বাসনে যেতে বাধ্য  করেছে। এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, তিনি (বিচারপতি সিনহা) সাবেক হয়ে গেছেন। সাবেক হওয়ার অন্তর্জ্বালা আছে।
কী পরিস্থিতিতে সাবেক হয়েছেন তা সবাই জানে। বই লিখে মনগড়া কথা বলবেন বিদেশে বসে, সেটা নিয়ে কথা বলার কোনো প্রয়োজন আছে? এখন বইতে যা লিখেছেন, তখন তা বলার সৎ সাহস একজন বিচারপতির কেন ছিল না? এখন বিদায় নিয়ে কেন পুরানো কথা নতুন করে বলছেন, যা খুশি তাই বলছেন। এখন বিদেশে বসে আপন মনে ভুতুড়ে কথা ছাপছেন। এটা আমাদের ও দেশের মানুষের বিশ্বাস করতে হবে? বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।
অন্যদিকে, বিএনপি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বলেছেন, এস কে সিনহার বক্তব্যে পরিষ্কার বন্দুকের নলের মুখে সরকার বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। বিচার বিভাগ নিয়ন্ত্রণে নিয়েই সাজানো মামলায় রায় দিয়ে খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি করে এক নম্বর মিশন কার্যকর করেছে। এখন দুই নম্বর মিশন কার্যকর করতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ১০ই অক্টোবর দেয়া হবে। নির্বাচনের আগে এ মামলার রায়ের তারিখ ঘোষণা সুপরিকল্পিত নীলনকশারই অংশ।
আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই শীর্ষ স্থানীয় নেতার মন্তব্য ছাড়াও এস কে সিনহার বইটি নিয়ে তোলপাড় তৈরি হয়েছে দেশে-বিদেশে। নানা সংবাদ মাধ্যমে এ নিয়ে রিপোর্টও প্রকাশিত হয়েছে। সাক্ষাৎকার দিয়েও খোলামেলা কথা বলেছেন বিচারপতি সিনহা।