Share |

নতুন স্পেসিফিকেশন বা সিলেবাসের অধীনে বাংলা এ লেভেল পরীক্ষা

চলতি বছরে এ এস এবং এ লেভেল পরীক্ষার্থীরা পুরোনো সিলেবাস বা স্পেসিফিকেশনের অধীনে পরীক্ষা দিবে। পুরোনো সিলেবাস কোড নম্বর হচ্ছে ২৬৩৫। আর নতুন সিলেবাসের কোড নম্বর হলো ৭৬৩৭। তবে এ এস এবং এ লেভেলের অধ্যয়নরত ছাত্রছাত্রীরা ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর থেকে নতুন সিলেবাস অনুযায়ী লেখাপড়া করছে। আগামী বছর ২০২০ সাল নতুন সিলেবাসের অধীনে বাংলা এ লেভেল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বিস্তারিত জানতে হলে একিউএ ওয়েব সাইটে যেতে হবে। পুরোনো সিলেবাসের তথ্যের জন্য গুগলে গিয়ে টাইপ করুন এ কিউ এ- সাবজেক্টস- বেঙ্গলি-গো ডাউন- ক্লিক ওন-বেঙ্গলি এজ এন্ড এ লেভেল ২৬৩৫-ক্লিক ওন পাস্ট পেপারস এন্ড মার্ক স্কামস, আর নতুন সিলেবাসের জন্য এইভাবে ওয়েবসাইটে যাবেন। শুধু এ লেভেল ২৬৩৫-এর পরিবর্তে ৭৬৩৭-এ ক্লিক করে সেম্পল অর স্পেসিম্যান ২০২০ প্রশ্নপত্র। আর নতুন সিলেবাসের আওতায় টপিক এবং প্রশ্নপত্রসহ বিস্তারিত জানতে হলে ডাউনলোড স্পেসিফিকেশন এ ক্লিক করলেই সবকিছু পেয়ে যাবেন।  
পুরোনা সিলেবাসের অধীনে এএস লেভেল ইউনিট ০১: সেকশন ১ এ একটি গল্প পড়ে (ইনসার্ট) প্রশ্নের উত্তর বাংলায় লিখতে হবে। সেকশন ২ তে বাংলা থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ করতে হবে। সেকশন ৩ তে রচনা লিখতে হবে। কয়েকটি বুলেট পয়েন্ট দেয়া থাকবে, সেগুলোর উপর ভিত্তি করে পরীক্ষার্থীদের নিজস্ব মতামত জানিয়ে কমপক্ষে ২ শত শব্দের মধ্যে রচনা লিখতে হবে। এ পরীক্ষার জন্য সময়সীমা হলো ২.৩০ ঘন্টা। টোটাল মার্কস থাকছে ১০০। বিস্তারিত জানতে হলে আপনারা উপরে উল্লেখিত ওয়েবসাইটে গিয়ে সার্চ করতে পারেন।
চলতি বছর পুরোনা সিলেবাসের অধীনে এ লেভেল ইউনিট ০২: সেকশন ১ এ একটি গল্প পড়ে (ইনসার্ট) প্রশ্নের উত্তর বাংলায় লিখতে হবে। সেকশন ২তে ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ করতে হবে। সেকশন ৩ তে লিটারারি সেকশন থেকে একটি এবং নন লিটারারি সেকশন থেকে একটি রচনা লিখতে হবে। এ পরীক্ষার জন্য সময়সীমা হলো ৩ ঘন্টা। টোটাল মার্কস থাকছে ১০০। বিস্তারিত জানতে হলে আপনারা উপরে উল্লেখিত ওয়েবসাইটে গিয়ে সার্চ করতে পারেন।  
আগামী বছর ২০২০ সাল নতুন সিলেবাসের অধীনে পরীক্ষার্থীরা ৩টি স্কিলে এ লেভেল পরীক্ষা দিবে।
১. পেপার ১ রিডিং এন্ড রাটিিটং।
২. পেপার ২ রাইটিং।
৩. পেপার ৩ লিসেনিং, রিডিং এন্ড রাইটিং।
 প্রশ্নসহ বিস্তারিত জানতে হলে অনুগ্রহ করে উপরে উল্লেখিত ওয়েব সাইট ভিজিট করুন। এবারে আপনাদের উদ্দেশ্যে জানিয়ে দিচ্ছি চলতি বছরের ২০১৯ সালের বাংলা এ এস/এ লেভেল পরীক্ষার সময়সূচী:
১.    এএস লেভেল ইউনিট ০১ এর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বুধবার ১৫ মে।
২.     ২. এ লেভেল ইউনিট ০২ এর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বুধবার ২২ মে।
 ৩. তবে এ বছর যদি কোনো পরীক্ষার্থী এ লেভেল পরীক্ষায় আশানুরূপ রেজা? করতে ব্যর্থ হয়, সে বা তারা আগামী বছর পুরোনো সিলেবাসের অধীনে আবারও এ লেভেল পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে। এটা হবে তাদের জন্য ফাইনাল রেসিট অর্থাৎ শেষ সুযোগ। নতুন সিলেবাসের অধীনে এ লেভেল পরীক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ গ্রেড ধরা হয়েছে ‘এ স্টার’। আর সর্বনিম্ন গ্রেড ‘ই’। যদি কেউ গ্রেড ‘ই’র নিচে পায়, সেক্ষেত্রে তার রেজা?কে ইউ অর আন ক্লাসিফাইড ধরা হবে। পরীক্ষার্থী কোনো সার্টিফিকেট (কোলিফিকেশন সার্টিফিকেট) পাবে না। তবে পরের বছর সে বা তারা আবার এ লেভেল পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে। নতুন সিলেবাসের অধীনে বাংলায় এ-এস লেভেল থাকছে না। ফলে একেবারে দুবছর শেষ করে পরীক্ষার্থীদের এ লেভেল ফাইনাল পরীক্ষায়?অংশ নিতে হবে।  
অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশে সংক্ষেপে গত সপ্তাহে জিসিএসই এবং?চলতি সপ্তাহে এএস ও এ লেভেল পরীক্ষার নিয়ম-কানুন, টপিকস, পুরোনো ও নতুন সিলেবাসের আওতায় প্রশ্নপত্র নিয়ে আমি আলোকপাত করার চেষ্টা করেছি। আমার এ লেখার উদ্দেশ্য ছিলো, এ দুটো পরীক্ষা সম্পর্কে আপনাদের ধারণা দেয়া এবং সেই সাথে অভিভাবকরা যাতে সন্তানদের সাথে এ নিয়ে আলাপ করতে পারেন তা নিশ্চিত করা।  এ প্রসঙ্গে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের প্রতি আমার বিশেষ অনুরোধ,  আপনারা আপনাদের সন্তানদের বুঝিয়ে বলুন যে, স্প্যানিশ, ফ্রেন্স এমনকি ইংরেজি ভাষার তুলনায় বাংলা ভাষার গুরুত্ব এবং মর্যাদা কোনো অংশেই কম নয়। অর্থাৎ বাংলাকে খাটো করে দেখার কোনো অবকাশ নেই। কারণ অনেক ছাত্র/ছাত্রী আজকাল সোয়াস বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং কিংস কলেজে বাংলা অধ্যয়ন করছে। অক্সফোর্ড এবং ক্যামব্রিজের মতো বিশ্বখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা জিসিএসই, এ এস/এ লেভেল রেজা?কে মূল্যায়ন করছে। একবার ভাবুন তো ব্রেক্সিট কার্যকর হলে আমার ও আপনাদের ছেলেমেয়েরা কি ইউরোপে আর কাজ করতে চাইবে? তখন চর্চার অভাবে তারা ইউরোপীয় ভাষা ভুলে যেতে পারে। অথচ বাংলা জানা থাকলে তা আজীবন তাদেরকে চর্চা করতে সাহায্য করবে- এটা বলা বাহুল্য। বাংলা ভাষা তাদের উদ্বুদ্ধ করবে বাংলাদেশে গিয়ে শেকড়ের সন্ধান করতে। বাংলা সংস্কৃতি, কৃষ্টি তাদের কাছে আরো আপন হয়ে ধরা দেবে যা বাঙালি মা-বাবা হিসেবে আমরা সবাই প্রত্যাশা করে থাকি। তাই অনুরোধ, আপনাদের সন্তানদের এখন থেকেই উৎসাহিত করুন স্কুল বা কলেজে বাংলা বিষয়ে লেখাপড়া করার জন্য। আমরা শিক্ষকরা কিংবা কমিউনিটি সংগঠনগুলো বাংলা ভাষা টিকিয়ে রাখার জন্য আন্দোলন করতে পারি ঠিকই, তাতে কোনো লাভ হবে বলে মনে হয় না। কারণ এদেশের নিয়ম অনুযায়ী স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষ পরেন্টেদের কথা শুনতে বাধ্য। তাই আপনাদের অবশ্যই এগিয়ে আসতে হবে। মূলধারার স্কুল কলেজের শিক্ষা কারিকুরামে বাংলা ভাষাকে স্থায়ীভাবে ধরে রাখার জন্য। যেসব পরীক্ষার্থী এ বছর নতুন সিলেবাসের অধীনে বাংলা জিসিএসই পরীক্ষা দিবে তাদের প্রতি থাকছে শুভ কামনা। অগ্রিম রইলো শুভ কামনা তাদের জন্য, যারা আগামী বছর নতুন সিলেবাসের আওতায় বাংলা এ লেভেল পরীক্ষায় অংশ নেবে।  
লণ্ডন, ১০ এপ্রিল, ২০১৯
 লেখক : শিক্ষক, কমিউনিটি কর্মী ও সাংবাদিক। প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, বাংলা সারভাইভ্যাল ফোরাম, ইউকে।