Share |

বিশ্বকাপ নিয়ে ভাবনা

নিলুফা ইয়াসমীন হাসান
 খেলায় হারজিত থাকবেই। জয়-পরাজয় যাই  হোক বাংলাদেশ দলের প্রতি সমর্থন অব্যাহত থাকবে। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অংশগ্রহণেই আমি খুশী। এবারের বিশ্বকাপে আছে সারা বিশ্বের মাত্র ১০টি দল। এই দশটি সেরা দলের একটি হচ্ছে লাল-সবুজের বাংলাদেশ। আর এই ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশসহ আটটি দেশ সরাসরি অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছে। অন্যদিকে, দুবারের সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ বাছাই পর্বের পরীক্ষায় পাশ করে বিশ্বকাপের খেলার ছাড়পত্র পেয়েছে। বাছাই পর্বে নবাগত আফগানিস্তান টিকে যাওয়ায় ১৯৮৩ সাল থেকে অনুষ্ঠিত সবগুলো বিশ্বকাপে অংশ নেয়া জিম্বাবুইয়ে এবারের বিশ্বকাপে খেলতেই পারছে না। আমি বাংলাদেশের এই সাফল্যেই মহা খুশী। 
ঐতিহাসিক লর্ডসসহ ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের বিভিন্ন গ্রাউন্ডে লীগ পর্বে বাংলাদেশের মোট ৯টি খেলা দেখার জন্য গত বছর থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছি, আইসিসি ওয়েবসাইট থেকে এক বছর আগেই ব্যালটের মাধ্যমে টিকেট কিনেছি। 
ইতোমধ্যেই বাংলাদেশের তিনটি ম্যাচ দেখেছি। স্টেডিয়ামে প্রবেশের আগেই যখন দেখতে পাই বাংলাদেশের পতাকা পত্ পত্্ করে উড়ছে, আর খেলা শুরুর আগে যখন বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত “আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি/ চিরদিন তোমার আকাশ/ চিরদিন তোমার আকাশ/ তোমার বাতাস আমার প্রাণে/ ও মা আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি/সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি” গাওয়া হয় তখন এক অপূর্ব অনুভূতিতে আপ্লুত হয়ে যাই,  আনন্দাশ্রু ধরে রাখা যায় না। মাঠের বড় পর্দায় বাংলা গান শুনলে প্রাণটা জুড়িয়ে যায়। গ্যালারীতে বাংলাদেশের জার্সী পড়ে হাজারো দর্শক যখন ‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ শ্লোগানে ফেটে পড়ে তখন মনে হয় ঢাকার স্টেডিয়ামে বসেই খেলা দেখছি। তাই জয়-পরাজয় তেমন কিছু আসে যায়না। তবে টাইগাররা জয়লাভ করলে আনন্দের সীমা থাকেনা। প্রথম খেলায় বাংলাদেশ বিশাল রানের ব্যবধানে সাউথ আফ্রিকাকে হারিয়েছে। দ্বিতীয় খেলায় নিউজিল্যান্ডের সাথে হারলেও লড়াই করেই হেরেছে। আর কার্ডিফের সেফিয়া গার্ডেন্সের মাঠে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের সাথে বড় রানের ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ দল। কিন্তু তাতে কি? বাংলাদেশের জার্সি পড়ে টাইগারদের উৎসাহ দিতে গলা ফাটিয়ে ‘বাংলাদেশ‘ ‘বাংলাদেশ‘ বলে শ্লোগান দিয়েছি। প্রতি খেলায়ই প্রতিপক্ষের দর্শকরা দেখেছে বাংলাদেশী দর্শকদের দেশপ্রেম। 
আমার মতে, বোলিং ও ফি?িংএ  দুর্বলতার  জন্য নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশ দল হেরেছে। আশা করি আগামী খেলাগুলোতে দলে কিছুটা পরিবর্তন আসবে এবং ভুলগুলো শুধরে নিবে। বিশেষ করে ব্যাটিং এ লিটন দাশ এবং বোলিংএ রুবেলের অন্তর্ভুক্তি বাংলাদেশ আগামী ম্যাচগুলোতে আরও ভালো করবে বলে আশা করছি। 
টাইগার বাহিনী এবার দুই ধরনের জার্সি পড়ে খেলবে। বাংলাদেশ থেকে দুই রঙের জার্সিই আনিয়েছি। বিশেষ করে পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশ দল লাল জার্সি পড়ে খেলবে। তাই ৫ই জুলাই আমরাও লাল জার্সি পড়ে লর্ডসে যাব। হাজারো টাইগার ভক্তদের সাথে ‘জয় বাংলা’ শ্লোগান দিয়ে লর্ডস এর আকাশ কাঁপিয়ে দেয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে আছি। 
বাংলাদেশ ১৯৯৯ সালে প্রথম বিশ্বকাপ ক্রিকেটে অংশ নিয়ে সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন পাকিচ্চানকে হারিয়েছিল, ২০ বছর পরে বাংলাদেশ এবারও পাকিচ্চানকে হারাবে বলে আশায় বুক বেঁধেছি।
আমি, আমার ছেলেমেয়ে এবং হাজব্যান্ড আমরা সবাই ক্রিকেটের ভক্ত। বাংলাদেশে যখন ছিলাম বাচ্চাদের নিয়ে মাঠে যেয়ে খেলা দেখেছি। দু‘হাজার সালে যখন লন্ডন এসেছি তখন বাংলাদেশ টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়েছিল, আমার ছেলেমেয়েরা বাংলাদেশের পতাকা নিয়ে লর্ডসের সামনে বিজয় মিছিল করেছিল।
এবারের বিশ্বকাপে ওভালে ২ জুন সাউথ আফ্রিকার সাথে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের প্রথম খেলা ছেলে, ছেলের বউ, নাতনীকে সঙ্গে নিয়ে দেখেছি। আমার নাতনী ভাগ্যবান। ২০১৭ সালে এই ওভালেই নাতনী ও পরিবারের সবাইকে নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার খেলা দেখেছি, তখনও বাংলাদেশ হারেনি। বৃষ্টির জন্য মাঝপথে খেলা পরিত্যাক্ত হওয়ায় ঐদিন বাংলাদেশ-অষ্ট্রেলিয়া সমান পয়েন্ট ভাগাভাগি করেছিল। আর এবার ত‘ দাপটের সাথেই বাংলাদেশ সাউথ আফ্রিকাকে হারিয়েছে।
শুধু এবারের বিশ্বকাপ নয়, বাংলাদেশ ক্রিকেট দল যখনই ইংল্যান্ডে খেলতে এসেছে মোটামুটি সব খেলা-ই লন্ডনে বা লন্ডনের বাইরে মাঠে গিয়ে দেখেছি।
ইংল্যান্ডে ২০০৫ সালের ন্যাটওয়েস্ট সিরিজেও মাঠে বসে খেলা দেখেছি। বাংলাদেশ দল যখন ২০১০ সালে দ্বিপক্ষীয় সফরে ইংল্যান্ড এসেছিল তখন লর্ডসে অনুষ্ঠিত টেস্ট ম্যাচে তামিমের সেঞ্চুরী উপভোগ করেছিলাম। ২০১৭ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির গ্রুপ পর্যায়ের খেলায় বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছে সেই খেলাও কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্স ক্রিকেট গ্রাউন্ডে বসে দেখেছি। সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ তখন সেঞ্চুরী করেছিল। এবারের বিশ্বকাপে ৮ই জুন সোফিয়া গার্ডেন্সে ইংল্যান্ডের কাছে বাংলাদেশ হারলেও বিশ্বের এক নাম্বার অল রাউন্ডার সাকিব আল হাসানের সেঞ্চুরী উপভোগ করলাম। বাংলাদেশ দলের জন্য শুভ কামনা রইলো।