Share |

স্টোকসের অবিশ্বাস্য ব্যাটিং : ইতিহাস লিখল ইংল্যান্ড

লন্ডন, ২৬ আগস্ট : এ উক্তি রিকি পন্টিংয়ের। ২০০৫ ও ২০০৭- দুই অ্যাশেজে এমন ভিন্ন দুই ইংল্যান্ডের দেখা পেয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক। হেডিংলি টেস্টে যেন দুই ইংল্যান্ড হাজির হলো। প্রথম ইনিংসে ৬৭ রানে গুটিয়ে দলটাই নিজেদের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় রান তাড়ার রেকর্ড গড়ল! স্টোকসের অবিশ্বাস্য অবর্ণনীয় ১৩৫ রানের এক ইনিংস নিশ্চিত করল হেডিংলি টেস্টের গল্প এক শ বছর পরেও বলা হবে গর্বভরে। নিশ্চিত হার দেখতে থাকা ইংল্যান্ড অ্যাশেজে সমতা আনল ১ উইকেটের জয়ে। ২৫ আগস্ট লেখা হলো এই ইতিহাস। অস্বীকার করার উপায় নেই, ভাগ্যের সহযোগিতা স্টোকস পেয়েছেন। ৩৩ রানে নাথান লায়নের বলে সিৗপে ক্যাচ দিয়েছিলেন ডেভিড ওয়ার্নারের হাতের নিচ দিয়ে চলে গিয়েছে সে বল। সেই লায়নের বলেই জোরালো এলবিডব্লুর হাত থেকে বেঁচে গেছেন স্টোকস। অস্ট্রেলিয়া রিভিউ নিতে পারেনি। কারণ আগের ওভারেই নিশ্চিত লেগ স্টাম্পে পিচ করা বলেও রিভিউ নিয়েছিল উইকেটের জন্য মরিয়া অস্ট্রেলিয়া। ফলাফল, ১ রানের অবিশ্বাস্য এক জয় হাতছাড়া অস্ট্রেলিয়ার। তার আগের বলেই নিশ্চিত রান আউট নষ্ট করেছেন ওই লায়ন। স্টোকসের সঙ্গে অন্য প্রান্তে আঠা হয়ে লেগে থাকা লিচ দৌড় দিয়ে অর্ধেক পিচ পার হয়েও ফিরে আসতে পেরেছেন লায়ন সহজতম এক থ্রো ধরে স্টাম্পে না লাগাতে পারায়। তখনো জয় থেকে ২ রান দূরে ছিল ইংল্যান্ড।
২৮৬ রানে নবম উইকেট হারিয়েছিল ইংল্যান্ড। জয় তখনো ৭৩ রান দূরে। জ্যাক লিচের টেস্টে ৯২ রানের ইনিংস আছে সে তথ্য কোনো সাহস দিচ্ছিল না। প্রতি বল খেলার আগে রুমাল বের করে লিচের চশমা মোছার দৃশ্যও কোনো সমর্থকের জন্য স্বচ্চিদায়ক বিষয় নয়। কিন্তু টেস্ট ম্যাচ কিংবা কোনো ক্রিকেট ম্যাচ জেতার জন্য দুই প্রান্তেই রান তোলার দরকার এটা কে বলেছে? ৬২ বলের জুটিতে ১৭ বল খেলা লিচ প্রথম রান করলেন ১৭তম বলেই। আর ওই রানেই দুই দলের রানের সমতা চলে এল। জুটির আগের ৭২ রানের বাকি ৭১ রান তোলার দায়িত্বটা যে নিজের কাঁধেই বুঝে নিয়েছেন স্টোকস।
বিশ্বকাপ ফাইনালে দলকে যেভাবে জিতিয়েছেন তারপর ক্যারিয়ারের বাকি সময়ে উল্লেখযোগ্য কিছু না করলেও চলত বেন স্টোকসের। একাই টেনে নিয়ে সেদিন ম্যাচ টাই করেছিলেন স্টোকস। টেল এন্ডার নিয়ে কীভাবে খেলতে হয় সেটা সেদিনই দেখিয়েছেন। এর চেয়ে ভালো খেলা সম্ভব নয় বলেই ভাবা হচ্ছিল। কিন্তু স্টোকসই দেখালেন জেতার প্রতিজ্ঞা থাকলে অসম্ভব বলে কিছু নেই।
আগের দিনই জানা গিয়েছিল ইতিহাস করতে হবে ইংল্যান্ডকে। ৩৫৯ রানের লক্ষ্য যে কখনোই এর আগে তাড়া করতে পারেনি তারা। জো রুটের সুবাদে তবু আশা দেখছিল ইংল্যান্ড। ৭৫ রানে থাকা রুটের কারণে আড়ালে পড়ে গিয়েছিলেন স্টোকস। তাঁর নামের পাশে যে ছিল মাত্র ২। কিন্তু সেই ২ রান ৫০ বল থেকে করেছেন, এটাই বলে দিয়েছিল দরকার হলে শেষ দুই দিন ব্যাট করে হলে লক্ষ্যে পৌঁছাতে চান স্টোকস। আজ দিনের শুরুতেও প্রথম ১৬ বলে কোনো রান নেই। ৬৭তম বলে তাঁর নামের পাশে ৩ লেখা গেল। পরের বলেই রুট আউট!
তবু নিজের ব্যাটিং স্টাইল বদলায়নি। বেয়ারস্টোকে রান তোলার দায়িত্ব দিয়ে নিজের মতোই এগোচ্ছিলেন। বেয়ারস্টোকে পাশে নিয়ে এগোচ্ছিলেন। কিন্তু লায়নের বলে নিজে জীবন ফিরে পাওয়ার পরের বলেই বেয়ারস্টোকে আউট হয়ে যেতে দেখলেন। জয় তখনো ১০৪ রান দূরে। জস বাটলার এলেন আর গেলেন। ওকসও টিকলেন না বেশিক্ষণ। স্টুয়ার্ট ব্রড যখন ফিরলেন, স্টোকসের রান তখন ৬১।  
প্রথম চার মেরেছেন ৭৪তম বলে। ৮০ বল খেলার পরও তাঁর নামের পাশে ছিল ৭! নবম উইকেট পড়ার পর ১৭৪ বলে ৬১ রানের সংগ্রামী ইনিংসটা মাঠে মারা যাবে বলেই মনে হচ্ছিল। সেই স্টোকস সেঞ্চুরি ছুঁয়েছেন ১৯৯তম বলে। জশ হ্যাজলউডকে মিড উইকেট দিয়ে মারা চারে সেঞ্চুরি পেরিয়ে পরের দুই বলে আবার দুই ছক্কা। এর আগেই নাথান লায়নকে তিন ছক্কা মেরেছেন, দুটি একই ওভারে। ভয়ংকর মনে হওয়া কামিন্সকেও। সেঞ্চুরির পর কামিন্সের টানা দুই বলে আবার ছক্কা মেরেছেন। শেষ জুটির ৭৬ রানের ৭৪ রানই (৪৫ বলে) এনে দিয়েছেন স্টোকস। এর ৫৮-ই (৭ ছক্কা ও ৪ চার) এসেছে বাউন্ডারি থেকে।
এর চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ টেল এন্ড নিয়ে কীভাবে ব্যাট করতে হয় সেটার সেরা উদাহরণ সৃষ্টি করে দিলেন স্টোকস। প্রতি ওভারের প্রথম চার বলে বাউন্ডারি বা ২ করে রান তুলে পঞ্চম বলে সিঙ্গেল নিয়েছেন, শেষ বল খেলার আস্থা রেখেছেন সঙ্গীর ওপর। পুরো মাঠে ছড়িয়ে থাকা ফিল্ডারদের মাঝেও জায়গা খুঁজে বাউন্ডারি বের করে নিয়েছেন। নিজে আক্রমণাত্মক হয়েছেন, ফলে জয়ের গন্ধ পেয়েও আক্রমণাত্মক হতে পারেনি অস্ট্রেলিয়ার বোলাররা। এভাবেই অবিশ্বাস্য এক গল্প উপহার দিয়েছে টেস্ট ক্রিকেটকে। ম্যাচ শেষে নিজেও বর্ণা করতে পারেননি কী হচ্ছিল উইকেটে, ‘আমি জানি না। শুধু হাল ছাড়েনি, শেষ হওয়ার আগে শেষ বলিনি। লিচ আশার পর কী করতে হবে জানা ছিল পাঁচ বল ও এক বল।’
ম্যাচ জিতিয়েও তাই কীভাবে উদ্?যাপন করতে হবে বলতে পারলেন না, ‘শুধু চেষ্টা করছি যা হলো তা উপভোগ করার। কারণ, আমি জানি না এমন কিছু আর কখনো হবে কি না।’ বাচ্চবতা বলছে, হবে না। কিন্তু স্টোকসের এমন এক ইনিংসের দিনে কী সম্ভব আর কী অসম্ভব সে আলোচনায় যাওয়াটাই তো বোকামি!