Share |

রপ্তানীতে আবারো দেশসেরা সিমার্ক : তৃতীয়বারের মতো স্বর্ণপদক লাভ

পত্রিকা প্রতিবেদন
লন্ডন, ৯ সেপ্টেম্বর : বাংলাদেশ থেকে রপ্তানীতে বিশেষ অবদানের জন্য আবারো স্বর্ণপদক লাভ করেছে সিমার্ক। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে হিমায়িত খাদ্য রপ্তানি করে সিমার্ক (বিডি) লিমিটেড জাতীয় রপ্তানি ট্রফিতে এই স্বর্ণপদক পেলো। গত ১লা সেপ্টেম্বর রোববার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিমার্ক (বিডি) লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল আহমদের কাছে এই ট্রফি তুলে দেন। এ নিয়ে জাতীয় রপ্তানি ট্রফিতে তৃতীয়বারের মতো স্বর্ণপদক লাভ করলো স্বনামধন্য এই প্রতিষ্ঠানটি। এ বছর ২৮ ক্যাটাগরিতে দেশ সেরা ৬৬টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধির হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় রপ্তানি ট্রফি তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। 
গেলো অর্থবছরে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় ৪৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অনুষ্ঠানে  বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি এবং তা আরো ত্বরান্বিত করতে ব্যাংকের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনার চেষ্টা সরকার করছে বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।
উল্লেখ্য, ইতিপূর্বেও সীমার্ক (বিডি) লিমিটেড বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে রপ্তানীতে বিশেষ সাফল্য প্রদর্শনের জন্য বিভিন্ন পুরস্কার লাভ করে। এর মধ্যে রয়েছে, ২০০২-০৩ অর্থবছরে স্বর্ণপদক, ২০০৫-০৬, ২০১১-১২, ২০১২-১৩ ও ২০১৩-১৪ অর্থবছরে রৌপ্যপদক এবং ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দ্বিতীয়বারের মতো স্বর্ণপদক লাভ। এছাড়া, মৎস্যজাত পণ্য রপ্তানীর ক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ সিমার্ককে জাতীয় মৎস্য পক্ষ পুরষ্কার ২০০৪ ও ২০১০ সালে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়।
প্রসঙ্গত, সীমার্ক (বিডি) লিমিটেড ২০০১ সাল থেকে বাংলাদেশে হিমায়িত চিংড়ি ও মৎস্য পণ্য বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করে তা রপ্তানী শুরু করে। এরপর থেকে অত্যন্ত কৃতিত্ব ও সুনামের সাথে যুক্তরাজ্য, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত দেশসমূহ, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও অধুনালুপ্ত সোভিয়েত ইউনিয়নভূক্ত দেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রপ্তানী করে আসছে। 
এই স্বীকৃতির মধ্যদিয়ে বাংলাদেশে হিমায়িত চিংড়ি ও মৎস্য পণ্য উৎপাদন ও রপ্তানীর ক্ষেত্রে সীমার্ক (বিডি) লিমিটেডের অবস্থান আরও সুদৃঢ় হলো। সীমার্ক গ্রুপের অন্যান্য সদস্য কোম্পানীর মত সীমার্ক (বিডি) লিমিটেডের শ্লোগান হলো ‘ওয়ার্?ওয়াইড কোয়ালিটি এণ্ড সার্ভিস।’  এবারের রপ্তানী ট্রফি প্রাপ্তির পর স্বর্ণজয়ী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এ ধরণের স্বীকৃতি সীমার্ক গ্রুপের কর্মকর্তা, শ্রমিক, কর্মচারীদের জন্য খুবই উৎসাহব্যঞ্জক। নিজেদের কর্মকাণ্ডের এই স্বীকৃতি এবং বিশেষ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নিজ হাতে তুলে দেয়া স্বর্ণপদক কোম্পানীর সকল স্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকদের অধিক উৎপাদন ও বাজারজাত জোরদারকরণে বিশেষভাবে উৎসাহ যোগাবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি