Share |

দলবদল মৌসুমের শেষ দিকে এসে হঠাৎ নাটকীয়তায় রোনালদো

৫ সেপ্টেম্বর : ইতালির জুভেন্টাস থেকে ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ কর্তৃপক্ষের বিশেষ অনুমতি নিয়ে ৩৬ বছর বয়সী পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড তাঁর পুরোনো ৭ নম্বর জার্সিই পরবেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে। দলবদল মৌসুমের শেষ দিকে এসে হঠাৎ নাটকীয়তায় রোনালদোর জুভেন্টাস ছেড়ে যাওয়া নিয়ে অনেক সমালোচনাও করছেন জুভের সমর্থকেরা। আর তুরিনের ক্লাবটির সাবেক তারকারা মনে করেন, রোনালদো জুভেন্টাসকে অপমান করেছেন।
রোনালদোর সমালোচনায় মুখ খুলেছেন আশি-নব্বইয়ের দশকে জুভেন্টাসের জার্সি গায় মাঠ মাতানো দুই তারকা সার্জিও ব্রিও এবং আলেসিও তাক্কিনার্দি।
সাবেক ইতালিয়ান মিডফি?ার তাক্কিনার্দি সংবাদমাধ্যম তুত্তাস্পোর্তকে বলেন, ‘রোনালদোর অন্য কোনোভাবে জুভেন্টাস ছাড়া উচিত ছিল। এম্পোলির বিপক্ষে ম্যাচের আগে (জুভেন্টাস কোচ মাসিমিলিয়ানো) আলেগ্রি যখন দলের সবার সঙ্গে ম্যাচ নিয়ে আলোচনা করছেন, সে সময় নিজের ব্যক্তিগত উড়োজাহাজে করে ক্লাব ছাড়া উচিত হয়নি। অন্তত একটা সংবাদ সম্মেলন করে সমর্থকদের বিদায় বলবে, এতটুকু আশা করেছিলাম। সমর্থকদের ওর কাছ থেকে আরেকটু সম্মান প্রাপ্য ছিল।’
রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে ২০১৮ সালে জুভেন্টাসে যাওয়ার পর যে ক্লাবকে ‘আপন’ মনে হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন রোনালদো।
গত ৩ বছরে জুভেন্টাসের জার্সি গায়ে ১৩৪ ম্যাচে ১০১ গোল করেছেন পর্তুগিজ সুপার স্টার। সেই রোনালদোই এখন জুভেন্টাস ছেড়ে ম্যান ইউনাইটেডে ফেরার পর বলেছেন, অবশেষে তিনি ‘ঘরে’ ফিরে এসেছেন। এটাও পছন্দ হয়নি তাক্কিনার্দির। তিনি বলেন ‘(আলেসসান্দ্রো) দেল পিয়েরো, (ফ্রান্সেসকো) টোট্টি, (পাওলো) মালদিনি, (হাভিয়ের) জানেত্তির মতো কিংবদন্তি এখন আর নেই, সেটা মেনেই নিয়েছি। কিন্তু রোনালদো ওখানে গিয়ে যে বললো ও এমন একটা ক্লাবে ফিরেছে, যেটাকে ওর ঘর মনে হয়, এটা শুনতে ভালো লাগেনি।’ দলবদলের একেবারে শেষ মুহূর্তে এসে রোনালদোর ক্লাব পাল্টানো নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তাক্কিনার্দি। তিনি বলেন, ‘জুভেন্টাসকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলেছে ও। দলবদলের মৌসুম শেষ হওয়ার দু-এক দিন আগে ক্লাব ছাড়লো। এরপর এত অল্প সময়ে ওর মতো গোলমেশিনের বিকল্প খুঁজে পাওয়া তো অসম্ভব।’
আর সাবেক ডিফেন্ডার সার্জিও ব্রিও বলেন, ‘জুভেন্টাসের আরও সম্মান প্রাপ্য ছিল। রোনালদো এভাবে ক্লাবটাকে উপেক্ষা করবে, এটা আশা করিনি। ওর দিক থেকে এটা ভালো কিছু হলো না। ক্রিস্টিয়ানো দারুণ একজন পেশাদার, কিন্তু ওর অন্যভাবে বিদায় নেয়া উচিত ছিল।’ ব্রিও বলেন, ‘ওদের সম্পর্কচ্ছেদ হয়তো সুন্দরভাবে হয়নি, তবে আমার মনে হচ্ছে খেলোয়াড় ও ক্লাব দুই পক্ষের জন্যই এতে ভালো হয়েছে। ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো খেলোয়াড় থাকলে সে তার সতীর্থ ও ক্লাবের জন্য মাথাব্যথার কারণ হয়ে যেত।’
ব্রিও ১৯৭৪ সাল থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত জুভেন্টাসে খেলেছেন। চারটি লীগ জেতার পাশাপাশি জুভেন্টাসের জার্সিতে উয়েফার সম্ভাব্য সব শিরোপাই অন্তত একবার করে জিতেছেন ইতালিয়ান সাবেক এই ডিফেন্ডার।
আর ১৯৯৪ সাল থেকে পরের ১২ বছরে ছয়বার লীগ ও একবার চ্যাম্পিয়নস লীগ জিতেছেন তাক্কিনার্দি।  ২০১৭ সালে জুভেন্টাসের বর্তমান স্টেডিয়াম চালু হওয়ার সময় ক্লাবের ইতিহাসরাঙানো ৫০ খেলোয়াড়ের নাম স্টেডিয়ামের জায়গায় জায়গায় লিখে রাখা হয়েছিল, তাদের একজন তাক্কিনার্দি।