Share |

মেয়র লুতফুর রহমানের কেবিনেট গঠিত

পত্রিকা প্রতিবেদন
লণ্ডন, ৩০ মে: পূর্ব লণ্ডনের বাংলাদেশি অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নবনির্বাচিত নির্বাহী মেয়র লুতফুর রহমান তাঁর কেবিনেট গঠন করেছেন। গত ২৫শে মে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলের পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে এই নতুন কেবিনেটের ঘোষণা আসে।
২৫মে মে বুধবার স্থানীয় সময় বিকাল ৭টায় কাউন্সিলের নির্ধারিত অভিষেক অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। মিটিংয়ের শুরুতে সাবেক প্রশাসনের স্পীকার আহবাব হোসেন সভাপতিত্ব করেন। তিনি টাওয়ার হ্যামলেটসের ফ্রিডম অব দ্য বারা খেতাবপ্রাপ্ত সদ্যপ্রয়াত সাংবাদিক ও কলামিস্ট মরহুম আবদুল গাফফার চৌধুরীর স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালনের আহবান জানান। নিরবতা পালন শেষে শুরু হয় অধিবেশনের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম। নতুন স্পীকার নিয়োগে অনুষ্ঠিত হয় ভোটাভুটি। বেশীরভাগ কাউন্সিলারের সমর্থনে নতুন স্পীকার নির্বাচত হন হোয়াইটচ্যাপেল ওয়ার্ডের কাউন্সিলার শাফি আহমদ। বিদায় নেন আহবাব হোসেন এবং নতুন স্পীকার হিসেবে আসন গ্রহণ করেন শাফি আহমদ। ডেপুটি স্পীকার হয়েছেন শ্যাডওয়েল থেকে নির্বাচিত কাউন্সিলার হারুন মিয়া।
সাবেক লেবার দলীয় মেয়র জন বিগস দুজন ডেপুটি মেয়র নিয়োগ দিয়েছিলেন। তবে নব নির্বাচিত মেয়র লুতফুর রহমান কাউন্সিলের অর্থ সাশ্রয়ের কথা চিন্তা করে স্বাভাবিক রীতি অনুযায়ী একজন ডেপুটি মেয়র নিয়োগ দিয়েছেন। ডেপুটি মেয়র হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন লুতফুর রহমানের একান্ত রাজনৈতিক সহযোগী হিসেবে পরিচিত কাউন্সিলার মাইয়ুম মিয়া। পাশাপাশি মাইয়ুম মিয়া এডুকেশন অ্যাণ্ড লাইফলং লার্নিং বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করবেন। কেবিনেটে দায়িত্ব পাওয়া বাকী কাউন্সিলাররা হলেন- রিসোর্স অ্যাণ্ড দ্য কস্ট অব লিভিং বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার সাইদ আহমেদ। রিজেনারেশন, ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট অ্যাণ্ড হাউজ বি?িং বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার কবির আহমদ। সেইফার কমিউনিটির বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার ওহিদ আহমদ। এনভায়রমেন্ট অ্যাণ্ড দি ক্লাইমেট ইমার্জেন্সি বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার কবির হোসেন। হেলথ, ওয়েলবিং অ্যাণ্ড সোশ্যাল কেয়ার বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী। জবস, স্কিল অ্যাণ্ড গ্রোথ বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার আবু তালহা চৌধুরী। ইকুয়ালিটিজ অ্যাণ্ড সোশ্যাল ইনক্লুশন বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার সুলুক আহমদ এবং কালচার অ্যাণ্ড রিক্রিয়েশন বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার ইকবাল হোসেন।
কাউন্সিলারদের সরাসরি ভোটে নতুন ক্যাবিনেট ২০২২-২০২৩ গঠন করা হয়।
উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে এক নির্বাচনী ট্রাইব্যুনাল লুতফুর রহমানকে মেয়র পদ থেকে অপসারণের পাশাপাশি ৫ বছর নির্বাচনে নিষিদ্ধ করেছিলো। কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে গত ৫ই মে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে নাটকীয় জয় পেয়ে আবারও তৃতীয়বারের মত মেয়র পদে ফিরে আসেন লুতফুর রহমান। দীর্ঘদিনের ক্ষমতাসীন লেবার পার্টিকে ধরাশায়ী করে এবার তাঁর দল এসপায়ার পার্টি ২৪টি কাউন্সিলার আসন জিতে নিয়ে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।